ক্ষেতলাল উপজেলায় স্কুলছাত্রের মরদেহ মিলল সেতুর নিচে

অনলাইন ডেস্ক : বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে বের হওয়া স্কুলছাত্রের মরদেহ মিলল সেতুর নিচে
জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলায় আরাফাত হোসেন জনি (১৫) নামের এক কিশোরের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার (১৫ এপ্রিল) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার বটতলী সেতুর নিচে তুলসীগঙ্গা নদীতে মরদেহটি পাওয়া যায়।

আরাফাত হোসেন জনি ক্ষেতলালের দাশড়া গ্রামের আলী আকবরের ছেলে। সে ক্ষেতলাল খোশবদন জি.ইউ আলিম মাদরাসার অষ্টম শ্রেণির ছাত্র।

নিহতের বাবা আলী আকবর বলেন, খালার বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে আজ সকাল ৮টার দিকে বাড়ি থেকে বের হয়। পরে লোকমুখে শুনতে পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি ছেলের মরদেহ।

আরও পড়ুনঃ   রাজশাহীতে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা

স্থানীয়রা জানান, বটতলী সেতুর নিচে কয়েকজন ব্যক্তি একটি মরদেহ দেখতে পান। সেখানে জনতার ভিড় জমে। পরে মরদেহটি উপজেলার দাশড়া উত্তরপাড়া গ্রামের আলী আকবরের ছেলে জনির বলে পরিবারের লোকজন শনাক্ত করেন। এরপর ঘটনাস্থল থেকে মরদেহটি পরিবারের লোকজন নিজ গ্রামে নিয়ে যান।

আরও পড়ুনঃ   মা হচ্ছে সন্তানের সব থেকে বড় শিক্ষক মাকে সম্মান করুন, ভালোবাসুন : আসাদ

ক্ষেতলাল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমরা মরদেহটি উদ্ধার করেছি। মরদেহের মাথার ভেতরে আঘাত থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। নাক-কান দিয়ে রক্ত বের হয়েছে। পরে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ জয়পুরহাট জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে সেতু থেকে নিচে পড়ে ছেলেটি মারা গেছে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।