নিসকে ৩-১ গোলে পরাজিত করে ফ্রেঞ্চ কাপের সেমিফাইনালে পিএসজি

অনলাইন ডেস্ক : মূল একাদশে ফিরে এসেই গোল পেয়েছেন কিলিয়ান এমবাপ্পে। কাল তার গোলে পিএসজি ফ্রেঞ্চ কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে নিসকে ৩-১ গেলে উড়িয়ে দিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে।

গত সপ্তাহে লিগ ওয়ানে রেইমসের সাথে ২-২ গোলের ড্রয়ের ম্যাচটিতে বদলী হিসেবে খেলতে নেমেছিলেন এমবাপ্পে। কিন্তু কাল লুইস এনরিকে ছয়টি পরিবর্তণ করে মূল দল সাজিয়েছিলেন। পার্ক ডি প্রিন্সেসে ১৪ মিনিটে এমবাপ্পের গোলে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। বিরতির আগে ব্যবধান দ্বিগুন করেন ফাবিয়ান রুইজ। ৩৭ মিনিটে গায়েটান লাবোর্দের গোলে নিস ম্যাচে ফিরে আসার ইঙ্গিত দেয়। কিন্তু ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার লুকাস বেরালডোর গোলে পিএসজির জয় নিশ্চিত হয়। পিএসজির জার্সি গায়ে এটাই বেরালডোর প্রথম গোল।

লিগ ওয়ানে ১০ পয়েন্টের ব্যবধানে শীর্ষস্থানে থাকা পিএসজি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালও নিশ্চিত করেছে। কালকের ম্যাচের পর প্যারিসের জায়ান্টদের সামনে এখন মৌসুমে ট্রেবল জয়ের সুযোগ রয়েছে।
ম্যাচ শেষে পিএসজি বস লুইস এনরিকে বলেছেন, ‘এই দলটি স্পষ্টভাবেই উন্নতি করছে। আমি মনে করি আমাদের এই উন্নতির ধারা অব্যাহত থাকবে। মৌসুমের তৃতীয় ভাগে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আমরা আছি। প্রতিটি প্রতিযোগিতায় এখনো আমরা টিকে রয়েছি। আমাদের আত্মতুষ্টিতে ভুগলে চলবে না। আরো বেশী প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ হতে হবে।’

ফরাসি কাপে রেকর্ড ১৪ বারের চ্যাম্পিয়ন পিএসজি আগামী ৩ এপ্রিল ঘরের মাঠে সেমিফাইনালে রেনেকে আতিথ্য দিবে। আরেক সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে লিঁও ও দ্বিতীয় টায়ারের ক্লাব ভ্যালেন্সিয়েনেস।
গত এক দশকে ছয়বার শিরোপা জয় করেছে পিএসজি। কিন্তু গত দুই বছর তারা ব্যর্থ হয়েছে। লিলিতে আগামী ২৫ মে ফ্রেঞ্চ কাপের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে।

আরও পড়ুনঃ   ১২৫ বছর ধরে কেন বিদেশি খেলোয়াড় কেনে না বিলবাও

মৌসুমের শেষে ক্লাব ছাড়ার ঘোষনা দেবার পর থেকে লিগ ওয়ানের চারটি ম্যাচে হয় বদলী বেঞ্চ থেকে অথবা বদলী বেঞ্চে গিয়ে ম্যাচ শেষ করেছেন এমবাপ্পে। এনরিকে তাকে ছাড়া দলকে গোছানোর পরিকল্পনা এখন থেকেই শুরু করে দিয়েছেন। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলতে রিয়াল সোসিয়েদাদের বিপক্ষে দারুন খেলেছেন এমবাপ্পে। সে কারনেই ঘরোয়া নক আউট প্রতিযোগিতায় ফরাসি অধিনায়ককে মূল দলে ফিরিয়ে আনতে বাধ্য হয়েছেন এনরিকে।

সাম্প্রতিক সময়ে এমবাপ্পেকে দলভূক্ত করার বিষয়টি ছাড়াও এত বেশী পরিবর্তনের কারনে এনরিকেকে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে। কিন্তু এনরিকে স্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দিয়েছেন মূল খেলোয়াড়দের দলের বাইরে রাখার কোন আগ্রহ বা ইচ্ছা তার নেই, ‘আমি এসব নিয়ে মোটেই চিন্তিত নই। একজন খেলোয়াড় যখন খেলার সুযোগ না পায় তখন স্বাভাবিক ভাবে অখুশী তাকে। অনুশীলনে তাদের শতভাগ প্রস্তুত থাকতে হয়। কারন সেখানকার প্রস্তুতি ম্যাচে প্রভাব ফেলে। এটা কোন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন নয়, সর্বোচ্চ পর্যায়ের একটি ফুটবল ক্লাব। পেশাদারীত্ব এখানে মূল কথা। খেলোয়াড়দের সেরা পারফরমেন্স দেখানোর জন্য সবসময় প্রস্তুত থাকতে হবে। এটা নায্য কি অনায্য সেটা আমার বিষয় না।’

আরও পড়ুনঃ   যে ইনিংস দিয়ে আরেকবার ফিরলেন পন্ত

অধিনায়কের আর্মব্যান্ড পড়ে মাঠে নামা এমবাপ্পে ১৪ মিনিটে রুইজের সাথে বল আদান প্রদান করে বক্সের ভিতর থেকে গোল করে পিএসজিকে এগিয়ে দেন। সব মিলিয়ে মৌসুমের এটি তার ৩৫তম গোল। গনসালো রামোস গোলের সহজ সুযোগ নষ্ট করেন। এমবাপ্পের একটি ডিফ্লেকটেড শট পোস্টে লেগে ফেরত আসে। নিসের দীর্ঘদেহী পোলিশ গোলরক্ষক মার্সিন বুলকার ভুলে রুইজ ৩৩ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুন করেন। এবারের মৌসুমে ঘরোয়া লিগে একমাত্র দল হিসেবে নিস পিএসজিকে পরাজিত করেছে। সেপ্টেম্বরে পার্ক ডি প্রিন্সেসের ম্যাচটিতে ৩-২ গোলে জয়ী হয়েছিল সফরকারীরা।

মৌসুমের মাঝামাঝিতে টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে থাকা নিস ছয় ম্যাচে জয়বিহীন থাকার পর ষষ্ঠ স্থানে নেমে গেছে। ৩৭ মিনিটে গায়েটান লাবোর্ডের গোলে নিস এক গোল পরিশোধ করে। কিন্তু ৬০ মিনিটে ভিটিনহার ক্রসে বেরালডোর গোলে নিসের সব আশা শেষ হয়ে যায়। জানুয়ারিতে সাও পাওলো থেকে প্যারিসে আসার পর নিয়মিত খেলোয়াড়ে পরিনত হয়েছে ২০ বছর বয়সী এই ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার।